skip to content »

profix-kuzbass.ru

Akhialamgirsxx

akhialamgirsxx-12

”ও অস্ফুট স্বরে নাক দিয়ে কেমন একটা শব্দ করলো যেটা শুনে আমার মনে হল ওর আরামই লাগছে।আমি ওকে মাসাজ করে দিতে লাগলাম। পিঠ থেকে আস্তে আস্তে নিচে নামলাম। ওর পাছাটা আমার কাছে খুব ভালো লাগলো। সুন্দর মসৃণ একটা পাছা। মাঝারি একটা ঢেউ উঠে আবার রানের সাথে এসে মিলিয়ে গেছে। মাঝের খাঁজটা অনেক গভীর লাগলো। আরো চিত হয়ে শুবার কারণে ওর পাছাটা অনেক টাইট মনে হচ্ছিল। আস্তে আস্তে ওর পায়ের দিকে নেমে এলাম। অনেক সুন্দর ওর পা দুটো। পা মাসাজ করার সময় চোখ পড়ল ওর গুদের দিকে। আমার চোখ খনিকের জন্য সেখানে আটকে গেল। আমি সেইবার প্রথম কোন মেয়ের গুদ বাস্তবে দেখছিলাম। ওর গুদটাতে একটা নিবিড় যত্নের ছাপ আমার চোখে পড়ল। সুন্দর করে লোম গুলো ছাটা। একেবারে নীট এন্ড ক্লিন। আমি একটু ভালো করে দেখার জন্য ওর পা দুটো আমার দুই কাঁধে নিয়ে মাসাজ করতে করতে ওর গুদটা দেখছিলাম। জিনিসটা কিছুটা একটা মানুষের ঠোঁট আর ওষ্ঠ্য মিলিয়ে যা হয় তাই। আর তার মাঝের ছিদ্রটা সহ দেখে মনে হয় ঠোঁটটা হাসছে। আমি অবাক হয়ে খেয়াল করলাম আমি মাসাজ করছি না, হাঁ করে সপ্নার গুদ দেখছি। পুরো জিনিসটা আমার কাছে খুব সুন্দর লাগলো। গুদটা থেকে একটু একটু করে পানি পড়ছিল। তখন দেখে মনে হয়েছিল ওর অর্গাজম হয়ে গেছে। কিন্তু পরে ভাল করে খেয়াল করে বুজলাম সেটা আসলে অর্গাজমের প্রাইমারী পিরিয়ডে যে রস বের হয় মেয়েদের সেটা। ভিজে পুরা চুপচুপা হয়ে গিয়েছিল সপ্নার গুদটা। সেদিন ও অনেক এক্সাইটেড হয়ে গেছিলো তখন ওর গুদ দেখেই টের পেয়েছিলাম। ওর গুদের কালারটা ওর বডি কালারের মতই ছিল। যেসব পর্ণোমুভি দেখেছিলাম সেগুলোর নায়িকা গুলোর গুদ অনেকটা বডি কালারের সাথে মিলত না। অবশ্য ভালো কোয়ালিটির পর্ণোমুভি হলে সেটা ভিন্ন কথা । তবে আমার ফ্রেন্ডরা যারা মাগী লাগিয়েছিল বা গার্ল ফ্রেন্ডের লগে সেক্স করার Experience ছিল ওরা বলত বাংলাদেশের গুদ নাকি কালা, ইন্ডিয়ার গুদও নাকি কালা। জাপানের গুদ নাকি ধলা। তখন আমার বিশ্বাস হইত না। সপ্নার গুদটা দেখে সেই বিশ্বাসে আরো ভাঁটা পড়ল। পরের দিন সপ্নাকে এই কথা বলতেই ও আমার বন্ধুদের পক্ষ নিয়ে বলল ওরা নাকি ঠিকই বলেছে। যাই হোক কি আর করা। যেহেতু সপ্না আমার সেক্সের গুরু, তাই তার কথাই ঠিক, নির্দ্বিধায় বিশ্বাস করলাম।ওর পা মাসাজ শেষ করে ওকে সোজা করে শুইয়ে দিয়ে বুকে মাসাজ করতে লাগলাম। বুকে চাপ পড়তেই ওর মুখে কেমন যেন একটা প্রশান্তি দেখতে পেলাম। সেটা দেখে আমি ঐ দিন বেশ কিছুক্ষন ওর বুকে মাসাজ করলাম। দুধ গুলো আলতো করে টিপে দিলাম। আমি যতই টিপছিলাম ওর দুধ গুলো ততই হলুদ ফর্সা থেকে লাল হয়ে যাচ্ছিল। আমি যে শুধু ওর প্রশান্তি দেখেই দুধ টিপছিলাম সেটা একেবারে ঠিক নয়। দুধগুলো টিপতে আমারো ভালো লাগছিল। ও হঠাৎ বলে উঠল, “Dry up my pussy, Please, dry up my pussy.”নেমে এলাম পায়ের কাছে । ওর Pussy তে কিছুক্ষণ আঙ্গুল দিয়ে Fuck করলাম। কিন্তু দেখলাম ও সেটা সহ্য করতে পারছে না। তাই Fuck করা বন্ধ করে দিয়ে আমি ওর গুদের মাঝে হাত বুলিয়ে দিতে লাগলাম। কারণ Fuck করতে গিয়েই যদি ওর অর্গাজম হয়ে যেত তাহলে পুরো মজাটাই নষ্ট হয়ে যেত এই ভয়ে। কিছুক্ষণ হাত বুলিয়ে আদর করার পর আমি গিয়ে ওর দুই পায়ের মাঝে বসলাম। ডিলডোটা হাতে নিয়ে ওটাতে সামান্য লুব্রেকেটিং অয়েল মেখে ভাইব্রেটর টা অন করে দিলাম। তারপর আস্তে আস্তে আমি ওর গুদের মাঝে সেটা চালাতে থাকলাম। ওর চোখ মুখ দেখে মনে হচ্ছিল ও খুব আরাম পাচ্ছিল। সত্যি কথা বলতে কি ওর গুদটা দেখে আমারই বাড়াটা ঢুকাতে ইচ্ছা করছিল। কিন্তু শুধু কনডম ছিল না, এই ভয়ে ঢুকাতে পারি নাই। হয়ত বেড লাক ছিল । তবে পরের দিনই সপ্না আমার ইচ্ছাটা ওর যৌনজ্ঞানের বদৌলতে কনডম ছাড়াই পূরণ করে দিয়েছিল। আমার সেক্স সম্পর্কে ধারনা কম থাকার জন্যই ঐ দিন কষ্ট করে ডিলডো খুঁজতে গিয়েছিলাম। সেই ঘটনা পরে লিখবো।তারপর আমি ডিলডোটা নাড়তে লাগলাম আস্তে আস্তে। দেখলাম পুরোটা ওর গুদের ভেতর অদৃশ্য হয়ে গেল। আমি আবার বাহিরে টেনে বের করে আনলাম। আবার ঢুকালাম। এভাবে কিছুক্ষণ করার পর ওর গুদ মাল ছাড়া শুরু করলো। আমি দ্রুত ডিলডো টা বের করে এনে, মুখ দিয়ে চুষতে থাকলাম ওর গুদটা । আমার জিহ্বার নড়াচড়াতেই মনে হয় ও কাতরাতে লাগলো। আর এদিকে আমি জিহ্বার কম্পন বাড়িয়ে দিলাম। ওর মাল কিছু আমার মুখে ঢুকল,কিছু বিছানায় পরে গেলো। স্বাদটা কিছুটা এলসিনোর মত। তবে পুরোপুরি না। মাল ছাড়া শেষ হলে আমি চেটে পুটে সব পরিষ্কার করে গেলাম ওয়াশরুমে। হাত থেকে প্রথমে সপ্নার মাল আমার বাড়াটাতে লাগিয়ে, পিচ্ছিল করে খেঁচতে লাগলাম। সপ্নাকে আর বিরক্ত করলাম না। ও টায়ার্ড ছিল, মাল ছাড়ার পর হয়ত ঘুমিয়েও গিয়েছিল। আমিও দ্রুত মাল খসালাম। তারপর জিনিসপাতি সব গুছিয়ে একটা টাওয়েল দিয়ে ওর গুদটা মুছিয়ে দিলাম।এরপর ন্যংটোই গিয়ে ওর পাশে শুলাম। কেন জানি ঐদিন Nude Sleep দিতে ইচ্ছা করছিল। আমি শুয়ে ওকে কাছে টেনে বুকে জড়িয়ে ধরলাম। ভেবেছিলাম ও ঘুমিয়ে গিয়েছে। কিন্তু আমি অবাক হয়ে খেয়াল করলাম সপ্না যেন ঘুমের ঘোরেই আমাকে জড়িয়ে ধরছে। তারপর কাঁথা মুড়ি দিয়ে ওকে দুহাতে জড়িয়ে ধরে মনের মাঝে একটা অন্যরকম প্রশান্তি নিয়ে চোখ বন্ধ করলাম। আর প্রায় সাথে সাথেই তলিয়ে গেলাম অতল ঘুমের সাগরে।রাতে কয়টা বাজে ঘুমিয়েছিলাম সেটা ঠিক খেয়াল ছিল না, তবে সকালে ঘুম ভাঙল যখন,তখন ঘড়িতে প্রায় এগারোটা বাজে। জানালার মোটা পর্দা গুলার কারণে রুমের ভেতরটা তখনও অন্ধকার ছিল । আমার বুকে সপ্না অঘরে ঘুমিয়ে আছে। পুরো শরীরটা আমার গায়ের সাথে লেপ্টে ছিল । আমি ওকে একটু কাছে টেনে ওর মাথায় একটা চুমু দিলাম । আনমনে ওর চুলে হাত বুলাতে বুলাতে মনে হল সত্যিই ‘নারী’ স্রষ্ঠার এক অপূর্ব সুন্দর সৃষ্টি । অনেক্ষণ হল ভ্যানের জন্য দাড়িয়ে রয়েছি কিন্তু কোন ভ্যানের খোজ নেই। কিছুক্ষণ আগে বৃষ্টি হয়ে গেছে এক পশলা, আকাশও এখনও গম্ভীর। মোবাইলের স্ক্রিনে টাইম দেখলাম, ১০টা ১৭। এত রাতে বাজারে কোন ভ্যান নেই। বৃষ্টি না হলে থাকত। কি আর করা। হাটতে লাগলাম। খালার ঔষধ কিনতে এসেছিলাম, আসার সময় যদিও ভ্যান পেয়েছিলাম, কিন্তু এই মুহুর্তে বাজারে যেমন কোন ভ্যান নেই তেমনি ঔষধের দোকান ছাড়া একটা ছোট্ট চায়ের এই দুটো ছাড়া অন্য কোন দোকানও খোলা নেই। বাধ্য হয়ে হাটা শুরু করলাম, মাটি দিয়ে বৃষ্টির গন্ধ বের হচ্ছে। আবার টিপটিপ করে হালকা বৃষ্টি শুরু হয়েছে। একটু জোরেই হাটা শুরু করলাম, গার্ল্স স্কুলের কাছা কাছি আসতে না আসতেই একটু জোরে শুরু হয়ে গেল। বাধ্য হয়ে দ্রুত পাশে একগাছের নিচে দাড়ালাম, আশপাশে কোন দোকান-পাটও নেই, বড় শিশু গাছ কিন্তু ছাট এসে ভিজিয়ে দিয়ে যাচ্ছিল। বাধ্য হয়ে পকেটের সিগারেট আর ম্যাচ বের করে গাছের বিপরীত প্রান্তে গেলাম, সিগারেট ধরিয়ে টানতে টানতে ভাবলাম, কিছুক্ষণের মধ্যে না থামলে জাখালা খুলে শুধু লুংগি পরা অবস্থায় দৌড় দেব। ওদিকে বাড়ীতেও খালা ছাড়া আর কেউ নেই। তাই বাড়ীতে তাড়াতাড়ি যাওয়ার তাড়া ছিল। মনোযোগটা বিড়ির দিকেই ছিল, কিনতু হঠাৎ স্কুলের গেটটা খুলে যাওয়ার শব্দে তাকালাম সেদিকে। অন্ধকারে মনে হলো একজন মহিলা আর ১০/১২ বছরের একটা বাচ্চা, জোর করে বের করে দেওয়া হল। বাচ্চাটির হাত ধরে মহিলা এই শিশুগাছের দিকেই আসছে। আমার পাশেই দাড়াল। বৃষ্টির আচ আরো বেড়ে গেল। বাধ্য হয়ে জাখালা খুলে মাথায় দিলাম। গোটমোট হয়ে তারাও সরে আসল আরো গাছের কাছে। এতক্ষণে খেয়াল করলাম, ৩০/৩৫ বছরের মহিলা। আর খালি গায়ে বাচ্চাটা। -কি হয়েছে রে খুকি, তোদের বের করে দিল কেন? খুকির উত্তর দেওয়ার আগেই মহিলা জিজ্ঞাসা করল, তার শব্দে কেমন যেন একটা আতঙ্কের ছোয়া। -এই তো আমার বাড়ী বাজারের ঐ পাশে। -আর বলেন না বাবাজি, ভিক্ষা করে খায়, রাতে শোব বলে বাচ্চাটাকে নিয়ে ঐ স্কুলের ভিতরে গিয়েছিলাম, বারান্দায় শুয়েও ছিলাম, কিন্তু বের করে দিল। -কেন? -হ্যা, চোখ দুটো জন্মের সময় ছিল, কিনতু ছোটকালে বসন্ত হয়ে চোখদুটো গেল। -তাহলে এটা কে? -মুজিবর যেবার রাজা হল, তার দুবছর পরে আমার জন্ম। মনে মনে হিসাব করে দেখলাম। -তাহলে তো খুব বেশি না। চোখ ভাল হয়ে গেলে তুমি বিয়েশাদী করে জীবন পাল্টিয়ে ফেলতে পারতে। -আপনি মিথ্যা কথা বলছেন, আমাকে বোকা ভেবে মিথ্যা বলছেন। -তোমাকে মিথ্যা বলে আমার কি লাভ বল?-আপনি ভদ্র লোক, আপনাকে বলতে আপত্তি নেই। ঐ বেটা দারোয়ান লোকটা ভাল না। আর কিছু জিজ্ঞাসা করতে ইচ্ছা হল না, কখন বৃষ্টি থামবে সেই আশাতে সিগারেটে টানদিয়ে চলেছি, কিনতু বৃষ্টি থামার কোন লক্ষই দেখা যাচ্ছে না। -বাচ্চাটি কি তোমার মেয়ে? আবার বিদ্যুত চমকালো, ছোট বাচ্চাটি গুটিসুটি মেরে সরে আসল গাছের দিকে। -আমার ভাইজি হয়। -ও। বৃষ্টি কমার কোন লক্ষনই দেখতে পাচ্ছি না, ওদিক খালার জন্য চিন্তা হচ্ছে। মোবাইলে আবার সময় দেখলাম, ১১ টা পার হয়ে গেছে। হঠাৎ খুব কাছে বাজ পড়ল। বাচ্চাটি ভয়ে চুপসে গেল, সরে আসল আমার দিকে। তার ফুফুও ভাইজির সাথে সাথে সরে আসল। এই পাশে ডাল থাকায় বৃষ্টির পানি ঝাট ছাড়া লাগছে না গায়ে। বৃষ্টি থামার কোন লক্ষ্মন দেখা যাচ্ছে না। বিরক্ত হয়ে পড়ছি। হঠাৎ আবার বাজ পড়ল, এবার যেন খুব কাছে। বাচ্চাটা প্রায় আমার কোলে এসে পড়ল। তার চাচীও সরে আসল। হঠাৎ কেনই যেন নরম কিছু ঠেকল। তাকালাম পাশে। মহিলা আর আমার মধ্যে চার আংগুলের ফারাক। আমার কেন তার দুধে লেগেছে। অত্যন্ত নরম, স্বাভাবিকের চেয়ে। এবার ইচ্চা করে কেন এগিয়ে দিলাম। মহিলার হাতের উপর দিয়ে কেন যেয়ে তার দুধে মৃদু ধাক্কা লাগল। নড়েচড়ে উঠল মহিলা। আবার দিলাম, এবার একটু বেশি চাপ। -চল খুকি, দুনিয়ার সব লোক একরকম। এখনও পর্যন্ত আমার মাথায় অন্য কোন চিন্তা ছিল না, কিন্তু মহিলার বিদ্রুপ যেন আমাকে জাগিয়ে তুলল। দাড়িয়ে গেছে মহিলা। -ডাক্তার দেখিয়েছ কোন সময়, এখনত চোখ ভাল হয়ে যায়। বুজলাম তার মনে ধাক্কা লেগেছে। আবার বসে পড়ল। বাচ্চাটি উঠতে উঠতে যাচ্ছিল, আবার বসে পড়ল। -সত্যি বলছেন, ভাল হয়ে যায়। -হ্যা, আমাদের বাড়ীর পাশেত একজনের হয়েছে। বিশ্বাস না হয় ডাক্তারের কাছে যাও। -কিনতু ডাক্তার কি আমার মত গরীব লোককে দেখবে। -অবশ্যই দেখবে। পাশের জেলায় মিশন হাসপাতাল আছে, ওখানে চলে যাও। ওদের ওখানে ধনি-গরীব নেই। -ভাই, আপনি আমার আপন ভাই, আমার একটু যাওয়ার ব্যবস্থা করে দেবেন। আমি সারাজীবন আপনার বান্দি হয়ে থাকব। -আচ্চা ঠিক আছে। মহিলা ইতিমধ্যে আমার অনেক কাছে সরে এসেছে। তার গা এখন আমার গায়ে লেগে রয়েছে। আবার দুধের ছোয়া লাগল। -তোমার বিয়ে হয়েছে? চোখে রেটিনা নামে একধরনের জিনিস থাকে। যাদের রেটিনা নষ্ট তারা দেখতে পায় না। মানুষ মরে গেলে তার রেটিনা অন্যের চোখে লাগিয়ে দিলে চোখ ভাল হয়ে যায় মহিলা যেন আরো সরে আসল আমার দিকে। আস্তে আস্তে ডানহাতটা বাড়ালাম, অন্ধকারে রাখলাম মহিলার উদ্ধত দুধের পরে। সরে গেল এক নিমেষে। -কি করছেন ভাই। আমি অসহায় বলে সুযোগ নিচছেন। এই খুকি চল, আমার চোখ ভাল হওয়ার দরকার নেই। -তোমার ইচ্ছে। কাল আমি যাব পাশের জেলায়, ইচছা হলে যেতে পার আমার সাথে। চুপচাপ বসল, কিনতু বেশ দুরুত্ব রেখে। অপেক্ষা করলাম, আরো দুই এক মিনিট। -তোমার এত বড় উপকার করবো, তোমারতো উচিৎ আমাকে কিছু দেওয়া। নাকি বল? তবে দোয়া করি যেন ভাল থাকেন। -শুধু দোয়ায় কাজ হয় না, আরো অনেক কিছু দিতে হয়। -আমারতো টাকা পয়সাও নেই যে আপনাকে দেব, তাহলে কি দেব?

akhialamgirsxx-47akhialamgirsxx-90

–ঠিক আছে।এই ছেলেটা সব কিছুতেই অনেক চেষ্টা করত। অনেক পরিশ্রম করত। কিন্তু চিন্তা করত জটিল করে। যেটার জন্য ও অনেক সহজ জিনিসও বুঝত না। আমি জানতাম ও আঁকতে পারবে না। এই জন্যই ওরে এটা আঁকতে দিয়েছিলাম। আমার যেই লাভ টা হল সেটা হল ঘটঘটানি বন্ধ। আমি দেখলাম ও কম্পাস আর স্কেল নিয়ে বসতেছে। আমি তো খুশি।শাওন এমনিতে ভালো ছেলে। সারাদিন পড়াশুনায় ডুবে থাকত। অন্যসব ছেলেরা যা করত ও ঐগুলার কিছুই করত না। ফার্স্টইয়ারের ছেলে গুলা অনেক রক্ত গরম টাইপের হয়। নতুন ভার্সিটি উঠছে,তার উপর ঢাকা শহরের বাতাস। সব কিছু মিলায়া একেবারে রঙিন দুনিয়া। আমাগো হলেই কয়েকটা পোলা ছিল যারা মদ,আফিম,হিরোইন,গাজ� �, আর মাইয়া লইয়া সারাদিন টাল হইয়া থাকত। আমি জানতাম প্রতিটা রুমেই একটা দুটো এরকম থাকেই। আমি যখন প্রথম যাই হলে থাকতে,তখন যেই রুমে ছিলাম সেটাতে দুটো আর্কিটেক্ট ভাইয়া ছিল। দেখতাম সারাদিন টাল হয়ে থাকত। আমারেও কয়েকদিন মদ নিতে কইছিল। নিছিলামও,কিন্তু খাইতে পারি নাই। এত জঘন্য জিনিস মনে হয় আমি এর আগে টেস্ট করি নাই। মদের থেকে মনে হয় মুতও বেশি মজা। আর সিগারেটের গন্ধই সহ্য করতে পারি না,গাঞ্জা তো দূরে থাক। কয়েকদিন অবশ্য পর্ণো মুভি দেখার চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু সেটাও ভালো লাগে নাই। সব গুলা একই রকম। কোন বৈচিত্র নাই। যখন দেখতাম তখন আমার এক্সাইটমেন্টই হইত না। তাই ঐটাও বেশিদিন করতে পারি নাই। হলের সবাই জানত আমাগো রুমে কোন রকমের উল্টাপাল্টা কাজ হইত না। এইজন্য একটা সুন্দর নামও ছিল আমাদের রুমটার। সেটা হল পবিত্র রুম। বুয়েটের জেরুজালেম (পবিত্র নগরী,যারা মুসলমান তারা হয়ত জেনে থাকবেন)। আর আমাগোরে মানে আমারে আর শাওন রে কইত পূত,পবিত্র মানুষ অথবা শিশু। পরে অবশ্য শিশু নামটাই বেশ প্রচলিত ছিল। তবে আমি যে ড্রিংক্স করতাম না তা একেবারে ঠিক না। আমার ওয়াইনটা খুব প্রিয়। আইস ওয়াইনটা বেশি লাইক করি। এখন সপ্তাহে অন্তত একবার এটা টেস্ট করি। আগে মাসে একবারও পাইতাম না। ব্রান্ডের মাঝে লাইক করতাম এলসিনো আর রেড সেভেন। অদ্ভুত জিনিস দুইটা। তবে প্রচুর দাম ছিল তখন। একটা এলসিনো’র বোটল ছিল ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা। যেটা ছিল আমার সারা মাসের খরচ। আর পোলাপাইনরাও আনত না। কইত নেশা নাকি জমে না। অবশ্য মাঝে মধ্যে স্যারের বাসায় গেলে খাওয়া যাইত।একটু পর দেখলাম আমার মোবাইলের লাইটটা একবার জ্বলতাছে একবার নিভতাছে। হাতে নিয়ে দেখি সপ্নার ফোন। সপ্না এখন আমার বউ কিন্তু তখন আমার গার্লফ্রেন্ড ছিল। ও তখন ডি.এম.সি.–হুম। তোমাকে অন্য এঙ্গেল থেকে আজকে দেখলাম তো,তাই।আমার পাশে শুতে শুতে ও একটু হেসে বলল, “কোন এঙ্গেল থেকে?”–Obviously সেক্সের এঙ্গেল থেকে।মাল ছাড়ার কিছুক্ষণ পর,এই দশ পনের মিনিট পর আমার বাড়াটা সবসময় প্রমান সাইজ থেকে একটু বেশিই ছোট হয়ে যায়। লম্বায় কানি আঙ্গুলটার মত হয়ে যায়। কথা বলতে বলতে ও আমার বাড়াতে হাত দিল। দিয়েই চমকে শোয়া থেকে উঠে বসে পড়লো। চোখ বড় বড় করে বলল, “তোমার বাড়াটা এত ছোট হয়েছে কিভাবে?বিদ্যুতের ঝলকে আদুল গায়ের লিকলিকে মেয়েটাকে দেখে জিজ্ঞাসা করলাম। -মেয়ে পাব কনে বলেন? -আগে তোমার চোখ ভাল হোক, তারপরে দিও। আবার হাত বাড়ালাম, পুর্ণ হাত রাখলাম, দুধের পরে, নড়বসল কিনতু উঠল না, মোলায়েম দুধ। -কালকেই চল আমার সাথে, আমার পরিচিত ডাক্তার আছে। বাচ্চাটা ইতিমধ্যে ঢলতে শুরু করেছে। আস্তে আস্তে দুধে হাত বোলাতে লাগলাম। কোমল দুধ। বাম হাত বাড়িয়ে শাড়িটা সরিয়ে দিলাম, ব্লাউজের প্রান্ত দিয়ে ডান হাতটা পুরে দিলাম, বেশ বড়, পুরোটা হাতে ধরছে না, কিনতু আশচর্য কোমল। কোথাও কোন ভাজ নেই, পরিপূর্ণ। -তোমার দুধ খুব সুন্দর। -দেখার কেই নেই তো, তাই হয়তো। বুজলাম অন্ধ হলেও তার মধ্যে একটা ফিলোসফি কাজ করছে। -তার মানে?-কেউ কোন দিন হাত দেয়নি তো, আপনি প্রথম হাত দিলেন। আশ্চর্য হলাম, -হাত দেয়নি মানে?–হ্যাঁ,দেখি মানে দেখার চেষ্টা করেছিলাম কয়েকবার।–কেন? –দেখে ভাল লাগে না। সবগুলাই একরকম। কোন ভিন্নতা নাই। একঘেয়ে।–“তোমার তাহলে ভিন্নতাও দরকার,না?

” সপ্না চোখ পাকিয়ে আমার দিকে তাকায় বলল।আমি সাথে সাথে বললাম, “না ঠিক তা না, It’s just boring.

”আমি হেসে বললাম, “মাল ছাড়ার পর এটা একটু ছোট হয়ে যায়।”ও হাসতে হাসতে বলল, “খুবই মজার জিনিস তো। একটু আগেও আমি দেখলাম প্রায় ছয় ইঞ্চির একটা এত বড় একটা জিনিস। সেটা এখন মাত্র আড়াই ইঞ্চি হয়ে গেল?

” ও যেন ভীষণ মজার একটা জিনিস দেখছে এমনভাবে ও ছোট্ট রিশাতকে দেখছিল। আমি কিছুই বলছিলাম না। চুপচাপ বসে ওর কাণ্ডকারখানা দেখছিলাম।একটু পর বলল, “এটা আবার কখন মাল ফেলতে পারবে? –তাহলেও খুব বেশি লাভ হবে না। চার পাঁচ মিনিট এদিক সেদিক হতে পারে। পুরা টাংকি খালি।–তোমার স্পার্ম কাউন্ট কিন্তু ভালো। অনেক বেড়িয়েছে।–তাই নাকি?

– না নাই। ইমারজেন্সি কলে সিঙ্গাপুর গেছে। আমি একা বাসাতে। প্লিজ আসো।আংকেল মানে আমার শ্বশুরও ডাক্তার ছিলেন। তখন ছিলেন মেডিকেলের প্রিন্সিপ্যাল, এখন রিটায়ার্ড করছেন । ও হল ওর আব্বু আম্মুর সিঙ্গেল মেয়ে, কোন ভাইবোন ছিল না । আর ওর আম্মুও ছোট থাকতেই মারা গিয়েছিলেন। অতএব বাসাতে একাই ছিল।–কিন্তু আমি তো আজকেই চলে যাওয়ার প্ল্যান করছি। সুমন আজই চলে যাবে। আমি পরে গেলে একা হয়ে যাবো।–“সুমন ভাইয়া গেলে গা,যাক গা। দরকার হয় আমি তোমার সাথে যাবো Ctg। প্লিজ আসবা বল, দুইদিনই তো,প্লিজ আসো না।” ও প্যানপ্যান শুরু করল–দেখি।– আসতোছ কখন?

– জানি না,একটু পড়তে বসবো। তারপর টিউশনিতে যাব। ওখান থেকে ভালো লাগলে আসবো।–না, না, ভালো লাগার কিছু নাই। তুমি আসতেছ এটাই ফাইনাল ডিসিশন। আমি আর কিছুই শুনতে চাচ্ছি না।–তাহলে আসতে আসতে বিকেল হতে পারে।–নো প্রবলেম। তাইলে দেখা হবে তখন। খোদা হাফেজ, ভালো থাইকো।–ঠিক আছে, খোদা হাফেজ।এই বলে আমি কলটা কেটে দিলাম। প্রায় পাঁচ মিনিটের কল ছিল সেটা। এই পাগলীটা যদি আমার জীবনে না আসত তাহলে হয়ত আমি মেয়ে মানুষ কি জিনিসটাই জানতাম না। ওর সাথে পরিচয়টাও হয়েছিল হঠাৎ করে। সেই ঘটনাটা একটু বলি।আমি গিয়েছিলাম DMC তে একটা ভর্তি ফর্ম তুলতে। সেখানে গিয়ে ফর্মের কিউ দেখে আমারতো মাথা খারাপ হয়ে যাওয়ার অবস্থা। বুদ্ধি করলাম কোন স্টুডেন্টকে হাত করার । তাহলে হয়ত আমার কিউটাতে দাঁড়াতে হবে না। আমি একটা স্টুডেন্টের সার্কেলের পাশে গিয়ে ইন্টারাপ্ট করলাম। তখন মনে হয়েছিল ফ্রেন্ডদের সার্কেল। এক্সকিউজ মি বলতেই সপ্না ঘুরে আমার দিকে তাকাল। আমি পুরা বিষয়টা তাকে বলতেই ও একটা হাসি দিয়ে বলল, “চলেন আমার সাথে।” তখনও আমি জানি না যে আমি DMC’র প্রিন্সিপ্যাল এর মেয়ের সাথে কথা বলতেছিলাম।অফিস রুমে যাবার পথে ও অনেক কথা বলছিল। আমি শুধু হাঁ হু করছিলাম। সপ্নার চেহারাটা একটু লম্বাটে টাইপের গোল। কিছুটা প্যারাবোলা টাইপের। আর নাকটা খাড়া। যখন ও কথা বলছিল তখন এত দ্রুত হাত দুটো নাড়ছিল দেখে মনে হচ্ছিল ও স্ট্রিট ডান্সের প্র্যাকটিস করছে। আমার এখনও মনে আছে, ঐ দিন ও দুজনের গায়ে হাত লাগিয়ে দিয়েছিল। এজন্য ওকে স্যরিও বলতে হয়েছিল।সপ্নাকে সুন্দরী বলা যাবে কিনা সেটা আমি জানি না। তবে চেহারাটা দেখে কেমন যেন শান্তি শান্তি লাগে। মনের মাঝে একটা বিচিত্র আনন্দও অনুভূত হয়। এটার কারণ কি সেটা আমি এখন পর্যন্ত বুঝতে পারি নাই। সপ্নার হাইট সাধারণ মেয়েদের থেকে একটু বেশি। কিন্তু আমার থেকে চার ইঞ্চি শর্ট। প্রথম দেখায় ওকে মনে হয়েছিল পাঁচ ফুট পাঁচ হবে হয়ত। পরে জানলাম ও পাঁচ ফুট সাড়ে ছয়। লম্বাই বলা যায়। আমার ফর্মটা কোন ঝামেলা ছাড়াই ও কিনে দিল। এই জন্য থ্যাংকস, ট্যাংকস দিলাম। তারপর ফোন নাম্বারটাও চাইলাম, পরে এমন ফর্ম তুলতে কাজে লাগবে এই ভেবে। কিন্তু কে জানত এই মেয়েই যে আমার বউ হবে?

”চোখ কচলাতে কচলাতে বিরক্তি মিশ্রিত কণ্ঠে বললাম, “হ্যাঁ,ভাঙল। দরজাটা খোলা রাখছো কেন? ”–“আরে ভাইয়া,সেই কথাই তো বলতে চাচ্ছিলাম। আমাদের ক্লাস আগামী সাত দিন বন্ধ থাকবে মানে ক্লাস সাসপেন্ড করা হয়েছে।” শাওন দাঁত গুলা বের করে বলল।আমি ভেতরে ভেতরে ভীষণ খুশি হলাম। গত কয়েকদিন হতে আম্মুকে খুব দেখতে ইচ্ছা করছিল। ভাবছিলাম বন্ধটাতে যাওয়া যাবে চট্টগ্রাম। আমার আম্মা ওখানেই ছিলেন তখন। বাহিরে খুশিটা দেখালাম না। নির্লিপ্ত কণ্ঠে বললাম, “তাই নাকি?